- Advertisement -

সাপ্তাহিক কৃষি বুলেটিন

174

- Advertisement -

 

কৃষিতে বারহাট্টা: সাপ্তাহিক কৃষি বুলেটিন
(০২ – ০৮ নভেম্বর ২০১৯)

মাঠে মাঠে সবুজের সমারোহে কিছুটা মলিনতা চলে এসেছে। চারিদিকে মৌ মৌ গন্ধের আবহ বিরাজ করছে। রাতের শেষভাগে শীতের প্রভাব দেখা দিচ্ছে। সকালে কুয়াশা স্পষ্ট হচ্ছে। দিনের দৈর্ঘ্য কমে আসছে। আগামী সপ্তাহে কৃষির ভুবনে কি আছে চলুন একটু জেনে নেই।

কৃষি আবহাওয়া তথ্য মোতাবেক, আকাশ পরিষ্কার থাকবে। রোপাআমনে ধানের ছড়ার ৮০% ধান পাকলেই কেটে মাড়াই ঝাড়াই করে ঘরে তুলে নেন। ধানের দুধ অবস্থায় গান্ধি পোকা ও পাকার মুহূর্তে শিষ কাটা লেদা পোকার আক্রমন হয়। তাছাড়া এসময়ে বাদামী গাছ ফড়িং (বিপিএইচ) এর আক্রমন হতে পারে। গান্ধি পোকার জন্য ক্লোরোপাইরিফস জাতীয় কীটনাশক এবং বিপিএইচ পোকা নিরাময়ে আইসোপ্রোকার্ব বা ইমিডাক্লোরোপিড জাতীয় কীটনাশক পরিমিত মাত্রায় ব্যবহার করতে হবে। লক্ষীর গু রোগের লক্ষণ দেখা দিতে পারে। তাই লক্ষণ দেখা দেয়ার আগেই প্রোপিকোজল জাতীয় ছত্রাকনাশক স্প্রে করতে হবে।

বোরো ধান উৎপাদনে, শুরুতেই আপনার কাঙ্খিত জাতের গুণগতমানের বীজ সংগ্রহ করে নিন। আগাম জাতের মধ্যে ব্রি ধান২৮, ব্রি ধান৬৭, ব্রি ধান৭৪, ব্রি ধান৮১, ব্রি ধান৮৪ এবং ব্রি ধান৮৮ এর বীজ সংগ্রহ করতে পারেন। দীর্ঘ মেয়াদী জাতের মধ্যে ব্রি ধান২৯, ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৬৯, ব্রি ধান৮৯ এর বীজ সংগ্রহ করতে পারেন। চিটা ও শৈত্য প্রবাহের তীব্রতা থেকে রেহাই পেতে দীর্ঘমেয়াদি জাতসমূহের বীজতলা ০১ নভেম্বর থেকে ০৭ নভেম্বর এবং স্বল্পমেয়াদি জাতগুলো ১৫ নভেম্বর হতে ২১ নভেম্বরের মধ্যে বীজতলা তৈরি করতে হবে। বোরো ধানের চারার বয়স ৩৫-৪৫ দিনের মধ্যেই রোপণ করতে হবে।

সরিষা ফসলের জন্য দ্রæত জমি প্রস্তুত করে নিন। বারি সরিষা ১৪, বারি সরিষা ১৫, বিনা সরিষা ৯ এসব উচ্চফলনশীল জাতের সরিষার বীজ করে দিন। সরিষার সর্ব্বোচ্চ ফলন পেতে অবশ্যই ৩০শে কার্তিকের মধ্যে জমিতে বপন করতে হবে। সরিষা ফসলে পর্যাপ্ত পরিমান জিপসাম ও বোরণ সারের প্রয়োজন হয়।

গম আবাদের জন্য জমি প্রস্তুত করে নিন। উন্নত জাত যেমন বারি গম২৫ (তাপ সহনশীল), বারি গম৩০ (পাতায় দাগ রোগ ও মরিচা রোধী) এবং বারি গম৩৩ (বøাস্ট রোধী) জাতের বীজ সংগ্রহ করে নিন। গমে বøাস্ট রোগ প্রতিরোধে বীজশোধন জরুরী। প্রতি কেজি বীজের জন্য ২ গ্রাম অটোস্টিন/ক্রুজার/ প্রোভেক্স ব্যবহার করতে পারেন।

ভুট্টা চাষের এখনই উপযুক্ত সময়। সাধারণত উঁচু জমিতে ভুট্টা হয়ে থাকে। ভুট্টা ফসলে পানি কম লাগে বিধায় উৎপাদন খরচ কম। ভুট্টার দানার গুড়া গবাদি পশুর উত্তম দানাদার খাবার। জমির উত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করতে ভুট্টা আবাদ করুন।

এসময়ে মসলা ফসল যেমন রসুন, পেঁয়াজ, আদা, হলুদ এবং মরিচ আবাদ করতে পারেন। আদা হলুদের জন্য ছায়াযুক্ত স্থান উত্তম। পারিবারিক প্রয়োজন মেটানোর জন্য হলেও অল্প একটু জমিতে পেঁয়াজ, রসুন আবাদ করতে পারেন।

সবজি চাষের ক্ষেত্রে জমিতে নিয়মিত পরিচর্যা করতে হয়। পরিচর্যাগুলো হলো নিয়মিত পানি সেচ দেয়া, নিড়ানী দেয়া, আগাছা দমন, পাশর্^ শাখা ও পাতা অপসারণ করা, মালচিং করা, সার প্রয়োগ, গোড়ায় মাটি তোলা, বাউনি দেয়া, পরাগায়ন করা সবশেষে রোগ ও পোকামাকড় দমন করা। আগাম আবাদ করা সবজি ফসল যেমন টমেটো, বেগুন, ফুলকপি,বাধাকপিসহ অন্যান্য ফসলে রোগ পোকামাকড় আক্রমন করতে পারে। তাই নিয়মিত মাঠ পরিদর্শন করুন। সমস্যা দেখা মাত্রই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন।

আলু, আখ, মিষ্টি আলুর জন্য জমি প্রস্তুতি ও রোপনের সময় এখনই তাই আজই প্রয়োজনীয় বীজ সংগ্রহসহ প্রস্তুতি নিতে পারেন। রোপাআমনে রিলে ফসল হিসেবে খেসারি, সরিষা এমনকি মিষ্টিকুমড়া আবাদ করতে পারেন।

এসময়ে আপনার ফলবাগানে পর্যাপ্ত পরিমাণ জৈবসারের সাথে টিএসপি, এমওপি, ইউরিয়া ও বোরন সার প্রয়োগ করে দিন।

কৃষিবিদ মোহাইমিন

- Advertisement -

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়, কিন্তু ট্র্যাকব্যাক এবং পিংব্যাক খোলা.