- Advertisement -

বন্যায় এ মুহূর্তে চাষী ভাইদের করণীয়

বন্যায় এ মুহূর্তে চাষী ভাইদের করণীয়

183

- Advertisement -

 

বন্যায় এ মুহূর্তে চাষী ভাইদের করণীয় (জুন-জুলাই)

কৃষিবিদ মোহাইমিনুর রশিদ

১. মাঠে যদি আউশ ধান ৮০ ভাগ পাকা অবস্থায় থাকে তবে দেরি না করে ধান কেটে মাড়াই-ঝাড়াই করে সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা নিন।
২. মাড়াইকৃত ধানগুলোকে ঘরে চাটাই/চট/ত্রিপোল বিছিয়ে ছড়িয়ে দিন, নিয়মিত ধানগুলো নাড়া চাড়া করে দিন, সম্ভব হলে ফ্যান বা ড্রায়ার ব্যবহার করুন।
৩. উঁচু জায়গার অভাব হলে কলাগাছের ভেলা বা চাটাইয়ের উপর কাদা মাটির প্রলেপ দিয়ে ভাসমান বীজতলা তৈরি করুন।
৪. রোপা আমন জাতের চারা রোপণে একটু সময় নিন। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে রোপণ করুন।
৫. ইতোমধ্যে রোপণকৃত আমন চারা বন্যার পানিতে ডুবে যাবার পর বেঁচে আছে, সেসব ক্ষেতের পানি নামার সাথে সাথে পলিমাটি পাতায় লেগে থাকলে পানি স্প্রে করে পরিস্কার করে দিন।
৬. আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ জমির এক পাশের সুস্থ গুছি থেকে কিছু চারা তুলে নিয়ে অপর পাশের ফাঁকা জায়গায় পূরণ করে দিন।
৭. বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে পাতা জাতীয় সবজি যেমন- গিমাকলমি, লালশাক, ডাঁটাশাক, পালংশাক এসব চাষের ব্যবস্থা নিন।
৮. কোরবানীর পশুর দিকে বিশেষ নজর দিন। নিয়মিত দানাদার খবারের ব্যবস্থা করুন, উঁচু শুষ্ক জায়গায় রাখুন এবং পরিস্কার পানি খেতে দিন। স্টেরয়েড জাতীয় কোন ইনজেকশন দিবেন না।
৯. বন্যার পূর্বেই খামারের চারপাশে পলিস্টার জাল ও বানা দিয়ে ভালোভাবে বেড়া দিতে হবে। বিক্রির উপযুক্ত মাছ যথাসম্ভব ধরে বিক্রি করার ব্যবস্থা নিতে হবে।
১০. বন্যার পানি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হলে, বস্তায় খাবার ভরে খুটির সাথে ১-২ ফুট পানির নিচে মাঝে মাঝে খাবার স্থাপন করতে হবে। তাহলে খাবারের লোভে খামারের মাছ তো যাবেই না বরং বাহির হতে মাছ খামারে প্রবেশ করবে।

 

- Advertisement -

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়, কিন্তু ট্র্যাকব্যাক এবং পিংব্যাক খোলা.