- Advertisement -

ধানের পাতা পোড়া রোগ বা বিএলবি: চিন্তার বিষয়!

246

- Advertisement -

 

ধানের পাতাপোড়া বা বিএলবি রোগের ব্যবস্থাপনা

ধানের পাতাপোড়া রোগটি মূলত ব্যাকটেরিয়া দ্বারা হয়ে থাকে। সাধারণত রোগটি চারা অবস্থা এবং কুশি বা তার পরবর্তী যেকোন সময় হতে পারে। কুশি বা পরবর্তী সময় প্রথমে পাতার অগ্রভাগ বা কিনারায় নীলাভ পানিচোষা দাগ দেখা যায়। দাগগুলো আস্তে আস্তে হালকা হলুদ রঙ ধারণ করে পাতার অগ্রভাগ থেকে নিচের দিকে বাড়তে থাকে। শেষের দিকে আংশিক বা সম্পূর্ণ পাতা ঝলসে যায় এবং ধুসর বা শুকনো খড়ের মত রঙ ধারণ করে।

ধানের পাতাপোড়া রোগটি ব্যবস্থাপনাতে একটু ব্যতিক্রমী ব্যবস্থা নিতে হয়। রোগের লক্ষণ দেখা যাওয়ার পরপরই ইউরিয়া ব্যবহার বন্ধ করে দিতে হবে। এ রোগটি সমাধানের লক্ষ্যে শুকনো ও ভেজা পদ্ধতি অনুসরণ করে সেচ দিলে খুবই ভালো উপকার পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে জমির পানি ছেড়ে দিয়ে ৩-৪ দিন জমি শুকানোর ব্যবস্থা নিতে হবে। অত:পর একর প্রতি ৩ কেজি পটাশ সার ব্যবহার করে সেচ দিতে হবে। এভাবে দু্ইবার করতে পারলে খুবই ভালো হয়, এতে জমিতে ব্যাকটেরিয়া জীবাণুর সংখ্যা কমে যায় সাথে সাথে জমির মাটির স্বাস্থ্য ভালো হয়। আক্রমনের তীব্রতা অনুসারে ব্যাকটেরিয়ানাশক হিসেবে ব্যাকট্রোবান প্রতি লিটার পানিতে ৪ গ্রাম হারে ভালোভাবে মিশিয়ে স্প্রে করতে পারেন।

তাছাড়াও ধানের পাতাপোড়া রোগ আক্রমনের প্রাথমিক অবস্থায় বিঘা প্রতি ৫ কেজি পটাশ সার উপরি প্রয়োগ করতে হবে। সম্ভব হলে প্রতি ১০ লিটার পানির সাথে ৬০ গ্রাম পটাশ এবং ৬০ গ্রাম থিওভিট সাথে ১০ গ্রাম চিলেটেড জিংক মিশিয়ে ৫ শতাংশ জমির জন্য স্প্রে করতে হবে।

কৃষিবিদ মোহাইমিন

 

- Advertisement -

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়, কিন্তু ট্র্যাকব্যাক এবং পিংব্যাক খোলা.