- Advertisement -

সঠিক পদ্ধতিতে চামড়া ছাড়ানো ও সংরক্ষণের নিয়মাবলি

চামড়া ছাড়ানো ও সংরক্ষণের নিয়মাবলি

1,802

- Advertisement -

 

সঠিক পদ্ধতিতে চামড়া ছাড়ানো ও সংরক্ষণের নিয়মাবলি

কৃষিবিদ মোহাইমিনুর রশিদ

চামড়া একটি মূল্যবান জাতীয় সম্পদ। বাংলাদেশের রপ্তানিযোগ্য অন্যতম খাত হলো চামড়া শিল্প। বিগত বছরগুলোতে চামড়া রপ্তানি করে বাংলাদেশ প্রায় ১.২৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেছে। বৈদশিক মুদ্রা অর্জনের প্রায় ১.৩৭% চামড়া ও চামড়াজাত দ্রব্যাদি থেকে আসে। বিশ্ব আসনে যা পঞ্চম। সুতরাং চামড়া শিল্পটাকে অবহেলা করে দেখার কোন অবকাশ নেই। তাই চামড়া সঠিকভাবে ছাড়ানো ও সংরক্ষণ করা আপনার, আমার সবার দায়িত্ব। পশুদেহ থেকে নিখুঁত চামড়া ছাড়ানো ও সঠিক সংরক্ষণের ওপর এর মান ও দাম নির্ভর করে। তাই নিখুঁতভাবে চামড়া ছাড়ানো ও সংরক্ষণ করা উচিত। আমাদের দেশে গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া ও অন্যান্য পশুর দেহ থেকে এইসব চামড়ার মধ্যে যে সব সমস্যাগুলো প্রায়ই দেখা যায় তাহলো চামড়ার নানাস্থানে কাটা দাগ, ছুরির দাগ, নিয়মানুসারে চামড়া না কাটা এবং চামড়ায় পচন ধরা উল্লেখযোগ্য। তাই সঠিক পদ্ধতিতে পশুর চামড়া ছাড়ানো ও সংরক্ষণের গুরুত্বপূর্ণ নিয়মাবলী নিয়ে আলোচনা করা হলো।

কোরবানীর পশুর চামড়া ছাড়ানোর নিয়মাবলী
চামড়ার মান ভালো হওয়ার জন্য শুরুতেই পশুর গায়ে ময়লা থাকা যাবে না। তাই পশুর গায়ে কোন ময়লা না থাকার জন্য জবাইয়ের পূর্বে পশুকে ভালোভাবে গোসল করাতে হবে। পশু জবাই করার কমপক্ষে ২ ঘন্টা পূর্বে পশুকে প্রচুর পরিষ্কার পানি পান করাতে হবে। এতে পশুর দেহ থেকে চামড়া ছাড়ানো সহজ হবে।
 পশুকে জবাই করার সময় বা মাটিতে শোয়াবার সময় সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে, যাতে পশুর দেহে চোট না লাগে। চোট লাগলে চামড়া থেতলিয়ে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে।
 জবাই করার জন্য নকদার ছুরি এবং চামড়া ছাড়াবার জন্য মাথা বাঁকানো ছুরি ব্যবহার করতে হবে।
 জবাই করার পর পশুর দেহ নিস্তেজ হয়ে গেলে পশুকে চিৎ করে শুইয়ে দু’পাশে ঠেস দিতে হবে। এতে চামড়ায় ছুরির কাটা দাগ লাগার সম্ভাবনা থাকে না।
 নকদার ছুরির অগ্রভাগ দিয়ে জবাই করার স্থান থেকে গলা, সিনা ও পেটের মাঝখান দিয়ে অন্ডকোষ বা ওলান পর্যন্ত সোজাসুজি চামড়া ফেড়ে নিতে হবে।
 সামনের দু’পায়ের হাঁটু থেকে সিনা পর্যন্ত চামড়া কেটে সিনার উপর দিয়ে কাটা দাগের সঙ্গে মিলিয়ে নিতে হবে।
 একই ভাবে, পিছনের দু’পায়ের হাঁটু থেকে লেজের কাছাকাছি পর্যন্ত চামড়া কেটে প্রথমোক্ত লম্বা কাটা দাগের সঙ্গে মিলিয়ে নিতে হবে। কোনক্রমেই যেন দাগ আকাঁ বাঁকা না হয় সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।
 ছোট পশুকে গাছের ডালে বা ঝুলনে ঝুঁলিয়ে চামড়া ছাড়াতে হবে। এতে চামড়া নষ্ট হবে না।
 ঝুলিয়ে চামড়া ছাড়ানো সম্ভব না হলে দাগ কাটার পর প্রথমেই গলার অর্ধেক ছাড়াতে হবে। তারপর সামনে পা ছাড়িয়ে সিনা, কাঁধ ও পেটের চামড়া ছাড়াতে হবে। পিছনের পা ছাড়িয়ে পিঠ পর্যন্ত নিতে হবে। সিনা ও পাছায় চামড়া লেগে থাকে, সুতরাং এ স্থানে চামড়া ছাড়ানোর সময় সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। চামড়া ছাড়ানোর জন্য মাথা বাঁকানো কম ধাঁরালো চুরি ব্যবহার করতে হবে।
 চামড়া ছাড়ানোর পর মাটিতে ছেঁচড়ানো যাবে না। রক্ত, গোবর এবং কাদাঁযুক্ত মাটি যেন চামড়ানো না লাগে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।
 ছাড়ানোর পর চামড়া যত শ্রীঘ্র বিক্রয় কেন্দ্রে পাঠাবার ব্যবস্থা করতে হবে। ৫-৬ ঘন্টার মধ্যে চামড়া বিক্রি না হলে চামড়া সংরক্ষণের পদ্ধতি অনুযায়ী সংরক্ষণ করতে হবে।

কোরবানী পশুর চামড়া সংরক্ষণের সহজ নিয়মাবলী

প্রথমেই চামড়া ভালোভাবে পরিস্কার পানিতে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর চামড়ায় লেগে থাকা অতিরিক্ত গোশত, চর্বি এবং ঝিল্লি ভালভাবে ছুরি দিয়ে উঠিয়ে ফেলতে হবে তা’না হলে ঐ সমস্ত স্থানে লবণ প্রবেশ করবে না। এরপর অতি গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো চামড়ায় লবণ লাগানো। এজন্য চামড়ার গোশতের পিঠ উপরের দিকে রেখে মুঠি মুঠি লবণ ছড়িয়ে হাত দিয়ে ভালভাবে ঘষে তাতে লবণ লাগিয়ে দিতে হবে। প্রথম বার লাগানোর লবণ চুষে নিলে আরও একবার লবণ ছড়িয়ে দিতে হবে। এক্ষেত্রে প্রতিটি গরুর চামড়া জন্য ৫-৭ কেজি এবং ছাগল বা ভেড়ার চামড়ার প্রতিটির জন্য ১.৫-২.০ কেজি লবণ দরকার হয়।

আমাদের দেশে প্রাপ্ত চামড়ার এক উল্লেখযোগ্য অংশ ঈদুল আযহার সময় পাওয়া যায়। উল্লেখ্য যে, মাত্র একদিনে অর্থ্যাৎ পবিত্র ঈদুল আযহার দিনে প্রায় তিন মিলিয়ন (৩০ লাখ) পশু জবাই করা হয়ে থাকে। এতো কম সময়ের ব্যবধানে এ বিশাল পরিমাণ পশু জবাই করার রেকর্ড সম্ভবত পৃথিবীতে দ্বিতীয় কোন দেশে আছে বলে মনে হয় না। এ সময় হৃষ্টপুষ্ট পশু থেকে উন্নতমানের চামড়া পাওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু পশুদেহ থেকে সঠিকভাবে চামড়া ছাড়ানো এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা হয় না বলে চামড়ার মান আশানুরূপ উন্নত হয় না। ফলে চামড়ার উপযুক্ত দাম পাওয়া যায় না। তাই দেশবাসীকে চামড়ার মান উন্নয়নের সচেষ্ট করে তোলা উচিত। কৃতজ্ঞতা: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ তথ্য দপ্তর।

 

- Advertisement -

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়, কিন্তু ট্র্যাকব্যাক এবং পিংব্যাক খোলা.