- Advertisement -

কৃষিতে বারহাট্টা: সাপ্তাহিক কৃষি বুলেটিন (০৫ অক্টোবর – ১১ অক্টোবর ২০১৯)

655

- Advertisement -

কৃষিতে বারহাট্টা: সাপ্তাহিক কৃষি বুলেটিন
(০৫ অক্টোবর – ১১ অক্টোবর ২০১৯)

আমন ধানের মায়াবি সবুজের আবাহন সবাইকে মোহিত করে। সকালে সবুজ ঘাসের উপর জমা শিশির বিন্দুগুলো দেখতে মুক্তোর দানার মতন মনে হয়। পুলকিত শিহরিত হয় মন। প্রকৃতির বুক থেকে আশি^ন মাসের বিদায় ঘন্টা বেজে যাচ্ছে। কৃষক ভাইয়েরা শিহরণময় এই মাসের আগামী সপ্তাহে কৃষির ভুবনে কি আছে চলুন একটু জেনে নেই।
আবহাওয়া বুলেটিন জানান দিচ্ছে, আগামী কয়েকদিন নেত্রকোণার আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকবে। কোথাও কোথাও গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হতে পারে। এরুপ পরিস্থিতিতে রোপাআমনে বøাস্ট ও বিএলবি রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। সাধারণত গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি, মেঘাচ্ছন্ন আকাশ, ঘুমোট পরিবেশেই বøাস্ট ও বিএলবি রোগের বিস্তার দ্রæত ঘটে। ধানের বøাস্ট রোগ নিয়ন্ত্রণে জমিতে কাইচ থোর আসার আগেই নাটিভো ৬ গ্রাম বা ট্রুপার ৮ গ্রাম বা দিফা ৮ গ্রাম বা বøাস্টিন ৬ গ্রাম পরিমাণ ১০ লিটার পানিতে মিশিয়ে ৫ শতাংশ জমিতে স্প্রে করে দিতে হবে। ধানের বিএলবি রোগ মুক্তির জন্য বিঘা প্রতি ৫ কেজি হারে এমওপি সার ব্যবহার করতে হবে। ধানচাষে একটা টনিক ফর্মুলা, কাইচ থোড় আসার আগ মুহুর্তে জমিতে ৬০ গ্রাম এমওপি সার + ৬০ গ্রাম থিওবিট + ১০ লিটার পানিতে ভালোভাবে মিশিয়ে স্প্রে করা।
রোপাআমন ধানী জমিতে কাইচ থোড় থেকে থোড় আসা অবধি ২-৫ সেমি পানির রাখার ব্যবস্থা নিতে হবে। এসময় পানির অভাব দেখা দিলে ধানের ফলন ব্যাপকভাবে কমে যায়। তাই বৃষ্টি হলে পানি আটকে রাখার ব্যবস্থা নিন। বৃষ্টির অভাব হলে অবশ্যই সম্পূরক সেচের ব্যবস্থা নিতে হবে। এজন্য নদী, পুকুর খাল, বিল ডোবা যেখানেই পানি সেচের উৎস পাওয়া যায় সেখান থেকে পাম্প, নলকুপ, দোন সেউতি দিয়ে সেচ দেয়া নিশ্চিত করতে হবে। সম্পুরক সেচ আমনের ফলন বহুগুন বাড়িয়ে দেয়।

আগাম টমেটো সবজি চাষীদের জন্য পরামর্শ, বেলে দো-আঁশ মাটিতে টমেটো বেশ ভালো হয়। মূল জমি প্রথমে ৪-৫ বার করে জমি চাষ ও মই দিয়ে মাটি ঝুরঝুরা করে নিতে হবে। আগাম টমেটোর জন্য জৈব সার খুবই গুরুত্বপুর্ণ। তাই জমি তৈরির সময় পর্যাপ্ত পরিমান জৈব সার দিতে হবে। রাসায়নিক সার একর প্রতি ইউরিয়া ১৬০ কেজি, টিএসপি ১৪০ কেজি, এমপি ১০০ কেজি, পচাগোবর ৫ টন পরিমাণ ব্যবহার করতে পারেন। ইউরিয়া ও পটাশ দু’ভাগ করে চারা লাগানোর ১৫ ও ৩৫ দিন পর প্রয়োগ করতে হবে। অন্যান্য সার শেষ চাষের সময় প্রয়োগ করতে হবে। টমেটোর গাছের ২৫-৩০ দিন বয়সের চারা রোপনের উপযুক্ত। সারি হতে সারি এবং গাছ হতে গাছের দুরত্ব ৫০ সেঃ মিঃ হতে হবে। প্রতি মাদায় ০৪ সেঃ মিঃ দুরত্বে দু’টি করে চারা লাগাতে হবে। ফুল আসার সময় সুস্থ সবল গাছটি রেখে অন্য গাছটি উপরে ফেলতে হবে। চারা লাগানোর সাথে সাথে চারার গোড়ায় পানি দিতে হবে। চারা লাগানোর প্রথম ২৪ ঘন্টায় কমপক্ষে তিনবার পানি চারার গোড়ায় দিলে সবচেয়ে ভাল হয়।
আগাম সবজি চাষীদের বলছি জমি তৈরির সময় শতক প্রতি ৪ কেজি হারে ডলোচুন ব্যবহার করে নিবেন। ডলোচুন ব্যবহারে মাটিতে থাকা ক্ষতিকর অণুজীবগুলো মারা যাওয়াসহ মাটির উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধি পায়। টমেটো,বেগুন ফসলের সবচেয়ে মারাতœক রোগ হলো ঢলে পড়া রোগ। জমি তৈরি সময় ডলোচুন ব্যবহারে এই রোগের প্রাদুর্ভাব কমে যায়।

ইতোমধ্যে রোপিত বিভিন্ন ফলদ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা মরে গিয়ে থাকলে এখনই গ্যাপ পূরণ করে নিতে পারেন। তাছাড়া এই বর্ষায় রোপণ করা চারার গোড়ায় মাটি দেয়া, চারার অতিরিক্ত এবং রোগাক্রান্ত ডাল ছেঁটে দেয়া, বেড়া বা খাঁচা এবং খুঁটি দেয়াসহ অন্যান্য পরিচর্যা করতে হবে।

নিচু এলাকার মাঠের পানি কমতে শুরু করেছে তাই এসময়ে বিনা চাষে মাসকলাই, খেসারি এমনকি পানিকচু রোপন করতে পারেন। তাছাড়া পরিত্যক্ত বীজতলা, রাস্তার পাশে উঁচু জায়গায়, পতিত মাঠে মাসকলাই বুনে দিতে পারেন।

ইঁদুর সকলের শক্র। আসুন, ফসল ও সম্পদ রক্ষায় সম্মিলিতভাবে ইঁদুর নিধন করি।

কৃষিই সমৃদ্ধি, কৃষিই আপনার অস্তিত্বের ধারক।

সংকলন: কৃষিবিদ মোহাইমিনুর রশিদ

 

- Advertisement -

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়, কিন্তু ট্র্যাকব্যাক এবং পিংব্যাক খোলা.